Headmaster's Speach

বাণী

একবিংশ শতাব্দীর উষালগ্নে বিশ্ব যখন শিক্ষা ও প্রযুক্তিতে এগিয়ে তখন আমাদের দেশের পিড়ামিড আকৃতির শিক্ষা ব্যবস্থায় এলাকার বিভিন্ন অলিতে-গলিতে ব্যাঙের ছাতার মতো অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিশুদের পিঠে বইয়ের  বোঝা ও মুখস্ত বিদ্যার বেড়াজালে শিশুরা  আজ পিষ্ঠ। এমতাবস্থায় মনীষি ভাবনায় শিক্ষার অঙ্গীকার নিয়ে স্টারল্যান্ড পাবলিক স্কুলের অগ্রযাত্রা। দেহ -মনে বিকশিত মানুষ হয়ে উঠার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।একটা মানব শিশু জন্মের পর থেকেই শিখতে শুরু করে। সন্তানের মা-বাবা, পরিবারের অপরাপর সদস্য ও আশেপাশের মানুষদের হাঁটা-চলা,কথা-বার্তা,পারস্পরিক ভাব-ভঙ্গী শিশু রপ্ত করতে চেষ্টা করে এবং পরিবারের সদস্যদের রুচি-অভ্যাস,চরিত্র-ব্যক্তিত্ব ইত্যাদির প্রভাব নিয়েই শিশু বেড়ে উঠে।২ বছর থেকে ৫ বছর সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ;কারণ তখন থেকেই মানুষের জীবনের প্রাথমিক ভিত্তি নির্মিত হয়। এজন্য এ সময় থেকেই প্রয়োজন পড়ে  একটা প্রাতিষ্ঠানিক আয়োজনের। আলবার্ট আইনস্টাইন বলেন,”কেবল সত্যের জ্ঞানই যথেষ্ট নয়।অক্লান্ত প্রচেষ্ঠায় অবিরাম সেই জ্ঞান নবায়ন করতে হবে। এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্ম ঐতিহ্যের সম্পদ হস্থান্তরের ক্ষেত্র হিসেবে পরিবার আজ দূর্বল হয়ে পড়েছে”। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বলতে মানুষের শারীরিক,মানসিক,মানবিক,আক্ষরিক, ও প্রায়োগিক ক্ষমতা-দক্ষতা ইত্যাদির সুষম বিকাশের প্রাতিষ্ঠানিক আয়োজন ও পরিবেশকে বুঝায়।স্টারল্যান্ড পাবলিক স্কুল সীমিত আয়োজনে উক্ত প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ণরত শিশুদের সার্বিক বিকাশে গুরুত্পাূর্ণ ভ’মিকা পালন করে আসছে।